কানাডায় ইমিগ্রান্ট বা অভিবাসীদের জন্য হেপাটাইটিস সি বিষয়ক তথ্য এত জরুরী কেন?

কানাডায় হেপাটাইটিস সি আক্রান্তদের প্রায় ২০ শতাংশই অভিবাসী। কানাডায় সাধারণ জনগোষ্ঠীর তুলনায় অভিবাসীদের মধ্যে হেপাটাইটিস সি সংক্রমণের হার বেশী। এমনও হতে পারে যে, আপনি এ ভাইরাসে আক্রান্ত কিন্তু আপনি তা জানেন না। কারন:

  • খুব অল্প সংখ্যক মানুষ হেপাটাইটিস সি সংক্রমণের ঝুঁকি সম্পর্কে জানেন বিশ্বজুড়ে হেপাটাইটিস সি আক্রান্ত রোগীদের শতকরা ৪০ ভাগ এর দেহে এ সংক্রমণ ঘটে কয়েকটি অনিরাপদ চিকিৎসা পদ্ধতির কারনে। এগুলোর মধ্যে সংক্রমিত দূষিত রক্ত একজনের দেহ থেকে অন্য দেহে সঞ্চালন এবং মাদক গ্রহনের জন্য একই সূঁচ ও অন্যান্য সরঞ্জাম অনেকে মিলে ব্যবহার অন্যতম।
  • কানাডায় আগত অভিবাসীদের হেপাটাইটিস সংক্রান্ত কোনো পরীক্ষার প্রয়োজন হয় না নিয়মিতভাবে সবার সিফিলিস, এইচআইভি ও যক্ষা পরীক্ষা করা হলেও হেপাটাইটিস এ, বি বা সি এর জন্য কোনো পরীক্ষা করা হয় না।
  • অনেকসময় হেপাটাইটিস সি-র কোনো উপসর্গ দেখা দেয় না: হেপাটাইটিস সি আক্রান্ত অধিকাংশ ব্যক্তির মধ্যে এ রোগের কোনো লক্ষন দেখা যায় না। তাদের লিভারের ক্ষতি হওয়া বা লিভারে ক্যান্সার না হওয়া পর্যন্ত তারা কোনো ধরণের অসুস্থতা বোধ করেন না এবং বুঝতেই পারেননা যে তারা হেপাটাইটিস সি আক্রান্ত।
  • অভিবাসীরা স্বাস্থ্যসেবা ও স্বাস্থ্য পরীক্ষার ক্ষেত্রে বাধার সম্মুখীন হনঅন্টারিওতে নতুন অভিবাসীদের অন্টারিও স্বাস্থ্যবীমা পরিকল্পনার (OHIP) জন্য তিনমাস অপেক্ষা করতে হয়। কানাডায় অভিবাসীরা সাংস্কৃতিক ও ভাষাগত অসুবিধার কারনে অনেকসময় স্বাস্থ্যসেবা এবং এ সংক্রান্ত তথ্যপ্রাপ্তির ক্ষেত্রে বাধার সম্মুখীন হন। ফলে তারা স্বাস্থ্যসেবা কম গ্রহণ করতে পারেন।
  • কানাডায় নতুন অভিবাসীদের জন্য স্বাস্থ্য অগ্রাধিকার বিষয়টি প্রায়ই কঠিন: কানাডায় আসা নতুন অভিবাসীদের স্বাস্থ্যের বিষয়টিকে অগ্রাধিকার দেয়া প্রায়শই কঠিন।নতুন করে জীবন শুরু করতে গিয়ে অন্য অনেক বিষয় স্বাস্থ্যের চেয়ে বেশী গুরুত্ব পায়। মানসিক চাপ বা উদ্বেগ এবং খাদ্য ও অন্যান্য উপাদান গ্রহন একজন ব্যক্তির সার্বিক স্বাস্থ্যের উপর প্রভাব ফেলতে পারে এবং অনেকে শুধুমাত্র জরুরি প্রয়োজনেই একমাত্র স্বাস্থ্যসেবা নিয়ে থাকেন।

প্রাথমিক পর্যায়ে স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও রোগ নির্ণয়ের মাধ্যমে ভাল স্বাস্থ্য ও মনের শান্তি নিশ্চিত করা যায়